ফাইজারের টিকার জরুরি ব্যবহার চায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও

নিজস্ব প্রতিবেধক
  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৬১ দেখেছেন

ফাইজার ও বায়োএনটেকের করোনা টিকার জরুরি ব্যবহার বিবেচনা করছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও। এজন্য টিকাটির বিষয়ে প্রাপ্ত তথ্য পর্যালোচনা করছে তারা।

বুধবার যুক্তরাজ্যে অনুমোদন পায় ফাইজারের টিকা। দেশটিতে আগামী সপ্তাহ থেকেই টিকা দেয়ার প্রস্তুতি চলছে। তবে মার্কিন সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউচি বলেছেন, যুক্তরাজ্য টিকার অনুমোদন নিয়ে তাড়াহুড়ো করেছে।

যাদের এলার্জি আছে, তাদের জন্য টিকাটি প্রাণঘাতী হতে পারে বলেও সতর্ক করেন তিনি। এদিকে আগামী সপ্তাহ থেকে রাশিয়ায় ব্যাপকহারে টিকা দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। খবর বিবিসি ও এএফপিসহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, যুক্তরাজ্যের মেডিসিন অ্যান্ড হেলথ কেয়ার প্রডাক্ট রেগুলেটরি এজেন্সি (এমএইচআরএ) ফাইজারের টিকা মানবদেহের জন্য নিরাপদ বলে উল্লেখ করেছে।

তাই এমএইচআরএর সঙ্গেও আলোচনা করছে তারা। গত মাসে ফাইজার ও বায়োএনটেক জানায়, তাদের টিকাটি করোনা থেকে ৯৫ শতাংশ সুরক্ষা দিতে সক্ষম।

এটিকে স্বাগত জানিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জরুরি পরিষেবার প্রধান মাইক রায়ান বলেছেন, আমাদের এখানেই থামা উচিত নয়। আমাদের আরও ৪ থেকে ৫টি করোনা টিকা দরকার।

তিনি বলেন, আমাদের টিকার উৎপাদন আরও বাড়াতে হবে, দামও কমিয়ে আনতে হবে। তাহলেই সবার জন্য টিকা নিশ্চিত হবে।

মার্কিন সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউচি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের মতো নিবিড়ভাবে ফাইজারের ট্রায়াল ডাটা পর্যালোচনা করেনি যুক্তরাজ্য।

যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) সব নিয়ম মেনে ট্রায়াল ডাটা খতিয়ে দেখছে। যদি সঠিকভাবে পর্যালোচনা হয়, তবে যাদের অ্যালার্জি আছে, তাদের জন্য এ টিকা মৃত্যুর কারণও হতে পারে।

এক সাক্ষাৎকারে ফাউচি আরও বলেন, এফডিএ যেখাবে কাজ করে এবং করছে, সেটিই সঠিক পদ্ধতি। আমরা আসলেই মনোযোগের সঙ্গে ডাটা পর্যালোচনা ও বাছাই করি।

কারণ আমরা চাই মার্কিন জনগণ একটি নিরাপদ ও কার্যকর টিকা পাক। দ্রুততার চেয়ে নিরাপত্তা বেশি জরুরি। তার মতে, শুধু দু’দিন এগিয়ে থাকার জন্য যুক্তরাজ্য বড় ঝুঁকি নিয়েছে। যা ঠিক নয়।

রাশিয়ায় ব্যাপকভাবে টিকা দেয়ার নির্দেশ পুতিনের : রাশিয়ায় ব্যাপকভাবে টিকাদান কর্মসূচি চালুর নির্দেশ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভ­াদিমির পুতিন। উপ-প্রধানমন্ত্রী তাতায়ানা গলিকোভাকে পুতিন বলেন, কাজে নেমে পড়ুন।

আমাকে জানানোর দরকার নেই, ব্যাপকভাবে ভ্যাকসিন দেয়ার কাজ শুরু করুন। তিনি বলেন, রাশিয়া আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই ২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন উৎপাদন করবে। প্রথম পর্যায়ে শিক্ষক এবং চিকিৎসা সংশ্লিষ্টরা এ ভ্যাকসিন পাবেন।

এর আগে দেশটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, তাদের তৈরি টিকা স্পুটনিক-৫ করোনার বিরুদ্ধে ৯২ শতাংশ কার্যকর। অন্য দেশেও টিকা সরবরাহের পরিকল্পনা রয়েছে তাদের।

এ বিষয়ে ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেন, টিকার প্রথম অগ্রাধিকার অবশ্যই রাশিয়ানদের। তবে অনেক দেশ আমাদের কাছে টিকা চেয়েছে। তাদেরও আমরা খালি হাতে ফেরাতে চাই না।

নকল টিকা নিয়ে ইন্টারপোলের সতর্কতা : করোনার টিকা নিয়ে যখন নানামুখী আশার আলো, ঠিক তখনই সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রের নিশানা হয়ে উঠেছে এটি, এমন সতর্কতা জারি করেছে আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা ইন্টারপোল।

সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্র করোনার নকল টিকা বাজারে ছাড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে সংস্থাটি।

ইন্টারপোলের মহাসচিব ইয়োরগেন স্টক বলেন, একদিকে নানা দেশের সরকার কোভিড-১৯ টিকা বাজারে আনার প্রস্তুতি নিচ্ছে, অন্যদিকে অপরাধী চক্র টিকা সরবরাহ ব্যবস্থায় হস্তক্ষেপ করা বা বিঘ্ন ঘটানোর ছক কষছে। তাই আমাদের সাবধান থাকতে হবে।

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

টাকা নিয়ে দলে নির্বাচনের অভিযোগ উঠল সাবেক আইপিএল তারকার বিরুদ্ধে। বেশ কিছু ক্রিকেট সংস্থার কর্মকর্তা নজরদারিতে রয়েছেন।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্ৰতিবেদন অনুযায়ী, সিকে নাইডু ট্রফিতে হিমাচল প্ৰদেশের অনূর্ধ্ব-২৩ দলে সুযোগ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে এক ক্রিকেটারের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে আইপিএল তারকা ও রাজ্য ক্রিকেট সংস্থার একাধিক কর্তার বিরুদ্ধে।

উত্তর প্রদেশের আনশুল রাজ নামের এক ক্রিকেটার এমন অভিযোগ করেন।  অনূর্ধ্ব-২৩ দলে সুযোগ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ায় সরাসরি অভিযুক্ত গুরুগ্রামের এক করপোরেট ম্যানেজমেন্ট ফার্মের প্রেসিডেন্ট আশুতোষ বোরা।

দিল্লি, অরুণাচল প্রদেশ, উত্তরাখণ্ড ক্রিকেট সংস্থা এবং বিহার টি১০ ক্রিকেট আয়োজকদের নোটিশ পাঠানো হয়েছে পুলিশের পক্ষ থেকে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- করপোরেট ম্যানেজমেন্ট ফার্মের প্রেসিডেন্ট আশুতোষ বোরা ও সংস্থার ম্যানেজিং ডিরেক্টর তার বোন চিত্রাকে ৩ সেপ্টেম্বর পুলিশ গ্রেফতার করে।

এমন অভিযোগ নিয়ে আনশুল জানান, সিকিম দলের সুযোগ দেওয়ারও প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয় তাকে। তবে শেষপর্যন্ত উত্তর প্রদেশ ক্রিকেটার বুঝতে পারেন তিনি প্রতারণার শিকার হয়েছেন।

আনশুল রাজের অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে- দরিদ্র সাধারণ পরিবারের হলেও দেশের হয়ে খেলার স্বপ্ন আমার বহুদিনের। অভিযুক্তরা আমাকে কার্যত ফকির করে দিয়েছে। ওদের বিরুদ্ধে যেন মামলা দায়ের করা হয়।

অভিযোগে আরও বলা হয়েছে, দিল্লির হয়ে বহুদিন টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট খেলা জাভেদ খানকে সেই সংস্থার মুখ্য হিসেবে ব্যবহার করা হতো। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের স্কোয়াডেও এক সময় ছিলেন জাভেদ খান।

টাকা দিলেই দলে সুযোগ!

LifePharm