‘বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় আলামত যাবে সিআইডির ফরেনসিক ল্যাবে’

নিজস্ব প্রতিবেধক
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ৬৭২ দেখেছেন

বিমান ছিনতাইচেষ্টার ঘটনায় জব্দকৃত আলামত আদালতের নির্দেশনা পেলে পাঠানো হবে সিআইডির ফরেনসিক ল্যাবে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর নেয়া হবে পরবর্তী পদক্ষেপ।

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বৃহস্পতিবার বিকালে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) আয়োজিত বার্ষিক পুলিশ সমাবেশ ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

আইজিপি বলেন, বিমান ছিনতাইচেষ্টার অভিযোগে দায়ের করা মামলাটি সিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিট তদন্ত করছে। তদন্ত কর্মকর্তা ওই বিমানের কেবিন ক্রু, যাত্রী ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে প্রকৃত ঘটনা তুলে আনার চেষ্টা করবেন। এখন পর্যন্ত মামলার তদন্তে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি নেই। মামলার অগ্রগতি থাকলে সিএমপি কমিশনার এ বিষয়ে নিয়মিত ব্রিফ করবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে আইজিপি ড.মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদ খানম মিতু হত্যা মামলার তদন্ত দ্রুত শেষ করে আদালতে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য তদন্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমানের সভাপতিত্বে এতে চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি খোন্দকার গোলাম ফারুকসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী বিজয়ীদের মাঝে অতিথিরা পুরস্কার তুলে দেন।

ছিনতাইকারীর কবলে পড়ার চার দিন পর বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ ময়ূরপঙ্খী চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাদিক বিমানবন্দর থেকে ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। উড়োজাহাজটি বুধবার রাত ৯টা ২২ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায়। ২৪ ফেব্রুয়ারি ছিনতাইচেষ্টার ঘটনার পর থেকে এটি শাহ আমানত বিমানবন্দরেই ছিল।

শাহ আমানত বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক উইং কমান্ডার এবিএম সরওয়ার-ই-জামান বৃহস্পতিবার যুগান্তরকে বলেন, ‘উড়োজাহাজটি বুধবার রাত ৯টা ২২ মিনিটে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে গেছে এবং ঢাকা বিমানবন্দরে পৌঁছেছে।’

এদিকে ছিনতাইচেষ্টার ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্ত চলছে। উড়োজাহাজটির ভেতরে কী ঘটেছিল – তা জানতে ব্ল্যাক বক্স ও সিসিটিভি ফুটেজ চাইবে তদন্ত কর্মকর্তা। শিগগিরই এ ব্যাপারে বিমান কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রাজেশ বড়ুয়া।

ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে দুবাইগামী বিমানের বিজি-১৪৭ ফ্লাইটটি গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ছিনতাইচেষ্টা করা হয়। উড়াল দেয়ার কিছুক্ষণ পরই উড়োজাহাজের ভেতরে বোমা ও অস্ত্রসদৃশ বস্তু নিয়ে পাইলট ও ক্রুদের ভয় দেখান এক ব্যক্তি। তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিভিন্ন দাবি-দাওয়া নিয়ে কথা বলতে চেয়েছিলেন। এরই একপর্যায়ে উড়োজাহাজটি চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

যাত্রীরা নিরাপদে নেমে যেতে পারলেও সাগর নামের একজন ক্রুকে আটকে রাখে ছিনতাই চেষ্টাকারী। একপর্যায়ে সাগরও নেমে আসেন। রানওয়েতে অবস্থান করা উড়োজাহাজটি ঘিরে রাখে পুলিশ, র‌্যাব ও সেনা সদস্যরা। পরে কমান্ডো অভিযানে প্রথমে আহত ও পরে নিহত হন ছিনতাইচেষ্টাকারী।

পরদিন জানা যায়, ছিনতাই চেষ্টাকারীর নাম পলাশ আহমেদ। তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলার পিরোজপুর ইউনিয়নের দুধঘাটা এলাকার পিআর জাহান সরদারের ছেলে এবং চিত্রনায়িকা সিমলার সাবেক স্বামী।

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

টাকা নিয়ে দলে নির্বাচনের অভিযোগ উঠল সাবেক আইপিএল তারকার বিরুদ্ধে। বেশ কিছু ক্রিকেট সংস্থার কর্মকর্তা নজরদারিতে রয়েছেন।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্ৰতিবেদন অনুযায়ী, সিকে নাইডু ট্রফিতে হিমাচল প্ৰদেশের অনূর্ধ্ব-২৩ দলে সুযোগ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে এক ক্রিকেটারের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে আইপিএল তারকা ও রাজ্য ক্রিকেট সংস্থার একাধিক কর্তার বিরুদ্ধে।

উত্তর প্রদেশের আনশুল রাজ নামের এক ক্রিকেটার এমন অভিযোগ করেন।  অনূর্ধ্ব-২৩ দলে সুযোগ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ায় সরাসরি অভিযুক্ত গুরুগ্রামের এক করপোরেট ম্যানেজমেন্ট ফার্মের প্রেসিডেন্ট আশুতোষ বোরা।

দিল্লি, অরুণাচল প্রদেশ, উত্তরাখণ্ড ক্রিকেট সংস্থা এবং বিহার টি১০ ক্রিকেট আয়োজকদের নোটিশ পাঠানো হয়েছে পুলিশের পক্ষ থেকে।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- করপোরেট ম্যানেজমেন্ট ফার্মের প্রেসিডেন্ট আশুতোষ বোরা ও সংস্থার ম্যানেজিং ডিরেক্টর তার বোন চিত্রাকে ৩ সেপ্টেম্বর পুলিশ গ্রেফতার করে।

এমন অভিযোগ নিয়ে আনশুল জানান, সিকিম দলের সুযোগ দেওয়ারও প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয় তাকে। তবে শেষপর্যন্ত উত্তর প্রদেশ ক্রিকেটার বুঝতে পারেন তিনি প্রতারণার শিকার হয়েছেন।

আনশুল রাজের অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে- দরিদ্র সাধারণ পরিবারের হলেও দেশের হয়ে খেলার স্বপ্ন আমার বহুদিনের। অভিযুক্তরা আমাকে কার্যত ফকির করে দিয়েছে। ওদের বিরুদ্ধে যেন মামলা দায়ের করা হয়।

অভিযোগে আরও বলা হয়েছে, দিল্লির হয়ে বহুদিন টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট খেলা জাভেদ খানকে সেই সংস্থার মুখ্য হিসেবে ব্যবহার করা হতো। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের স্কোয়াডেও এক সময় ছিলেন জাভেদ খান।

টাকা দিলেই দলে সুযোগ!

LifePharm